অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল আবিস্কারের ইতিহাস

স্মার্টফোন ব্যবহারকারী এমন একজন মানুষও হয়ত পাওয়া যাবে না যে অ্যান্ড্রয়েড শব্দটির সাথে পরিচিত নয়। তবে প্রকৃতপক্ষে অ্যান্ড্রয়েড বলতে কি বোঝায় আর কিভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে ধারনা বেশীর ভাগ মানুষেরই নেই। সহজ ভাষায় অ্যান্ড্রয়েড হল একগুচ্ছ সফটওয়্যারের সমষ্টি যেখানে মোবাইলের ওপারেটিং সিস্টেম এবং এপ্লিকেশন সমুহ এক সাথে থাকে। এটি মোবাইলের একটি অপারেটিং সিস্টেমের নাম, একে তৈরি করা হয়েছে মূলত লিনাক্স কার্নেলের উপর নির্ভর করে। বর্তমানে একে তৈরি এবং এর উন্নয়নের দায়িত্ব নিয়েছে গুগল। ২০০৫ সালে অ্যান্ড্রয়েড ইনকর্পোরেটকে গুগল ইনকর্পোরেট কিনে নেয়। গুগলের সাথে আরো অনেকগুলো ডেভেলপার বা উন্নয়নকারী একত্রে কাজ করে। এরা একসাথে অ্যান্ড্রয়েড এর জন্য নতুন নতুন এপ্লিকেশন তৈরি, অ্যান্ড্রয়েড উন্নয়ন সাধন এবং এর বাজারজাত করনের কাজগুলি করে থাকে।

জন্ম

২০০৩ সাল, মাসটা ছিল অক্টোবর, এই মাসেই ক্যালিফোর্নিয়ায় অ্যান্ড্রয়েড ইনকর্পোরেট এর জন্ম হয়। এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন এন্ডি রুবিন, রিচ মাইনার, নিক সিয়ারস এবং ক্রিস হোয়াইট। ভিন্ন ভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন প্রতিষ্ঠাতাগণ যার কারনে অনেকটা গোপনে এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম চালাতে হত।

প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে তারা শুধু এটাই বলতেন যে, তারা মোবাইলের জন্য একটি সফটওয়্যার তৈরির কাজ করছেন। তারা মূলত ডিজিটাল ক্যামেরায় কাজ করবে এমন একটি ভালো মানের অপারেটিং সিস্টেম তৈরির চেষ্টা করছিলেন। পরবর্তীতে তারা অনুধাবন করেন যে, এর বাজার চাহিদা বা দর আশানরুপ নাও হতে পারে। তখন তারা স্মার্টফোনের জন্য ভালো মানের অপারেটিং সিস্টেম তৈরিতে মনোনিবেশ করেন। 

হস্তান্তর
২০০৫ সালের ১৭ আগষ্ট, গুগল কিনে নেয় অ্যান্ড্রয়েড ইনকর্পোরেট কে। গুগল অবশ্য কোম্পানীর পুরনো কর্মচারী সহই কেনে এবং তাদের বহাল রাখে। অ্যান্ড্রয়েড সম্পর্কে সে সময় তেমন কিছু জানা না গেলেও অনেকেই অনুমান করেছিল যে গুগল হয়ত বাজারে নতুন মোবাইল আনতে চলেছে। গুগলে আসার পর রুবিন ও তার দল লিনাক্স কারণেল কে উন্নীত করে মোবাইলের ভিত্তি হিসেবে। এবার গুগল একে বাজারজাত করা শুরু করে। বিভিন্ন মোবাইল সংযোগকারী এবং হ্যান্ডসেট প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বাজারে আসে। তবে গুগলের উপর এই সব প্রতিষ্ঠান শর্ত আরোপ করেছিল যে, একে সবসময় আপডেট রাখতে হবে এবং এর উন্নয়নও চালিয়ে যেতে হবে। গুগলের নতুন মোবাইল বাজারে আসছে, এমন কিছু কথা বাজারে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে সেই সময়। বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যম এবং মিডিয়ায় খবর ছড়াতে থাকে যে, নিজস্ব ব্র্যান্ডের মোবাইল বা হ্যান্ডসেট বাজারে আনতে চলেছে গুগল।
ওপেন হ্যান্ডসেট

২০০৭ সালের ৫ নভেম্বার ওপেন হ্যান্ডসেটের যাত্রা শুরু করে যার সাথে ছিল গুগল, ব্রডকম কর্পোরেশন, মটোরোলা, এইচটিসি, স্যামসাং ইলেকট্রনিক্স, ইন্টেল, কোয়ালকম, এলজি, এনিভিয়া, মারভেল টেকনোলজি গ্রুপ এবং টি মোবাইল। ওপেন হ্যান্ডসেট এল্যায়েন্স এর প্রধান কাজ হল মোবাইল হ্যান্ডসেটের জন্য ফ্রী টাইপ প্ল্যাটফর্ম বানানো। 

প্রথম বাজারজাতকরণ

তারিখটা ছিল ২২ অক্টোবার, ২০০৮ সাল, এই দিনে প্রথম এইচটিসি ড্রিম স্মার্ট  ফোনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাজারে ছাড়া হয়। ২০০৮ সালের ৯ ডিসেম্বারে ১৪ টি সদস্যের আরো একটি দল যোগ দেয় এর সাথে। এই দলে যেসব কোম্পানী ছিল সেগুলো হল, এআরএম হোল্ডিংস, তোষিবা কর্পোরেশন, এথিরস কমিউনিকেশন, সনি এরিকসন, আসুসটেক কম্পিউটার ইনকর্পোরেট, সফটব্যাংক, জারমিন লিমিটেড, প্যাকেটভিডিও, হাওয়াই টেকনোলজিস এবং ভোডাফোন।  

২০১০ সালে অ্যান্ড্রয়েড দিয়ে চালানো স্মার্টফোন এবং ট্যাবলেট বের করে গুগল। গুগল নেক্সাস নামের এই ডিভাইস গুলো মূলত তৈরি হয় এর পার্টনারদের সহযোগীতায়। “নেক্সাস ওয়ান” নাম দিয়ে এইচটিসি গুগলের সাথে মিলে সর্বপ্রথম নেক্সাস স্মার্টফোন তৈরি করে। এর পর থেকে গুগলের এমন ধারার ডিভাইসের উন্নয়ন অব্যাহত রেখেছে যেমনঃ এলজি তৈরি করেছে নেক্সাস ৫, এসস এর তৈরি করা ট্যাবলেট হল নেক্সাস ৭ ইত্যাদি। 

অ্যান্ড্রয়েডের মুল পন্য হিসেবে নেক্সাস ডিভাইসটিকে বাজারে আনে গুগল। কারন এটি ছিল একেবারে আপডেট, নতুন এবং উন্নত অপারেটিং সিস্টেমের। এর সাথে কিছু হার্ডওয়্যার এবং কিছু সফটওয়্যারের বৈশিষ্ঠ্যও সংযোজন করা হয়েছিল।

২০১৩ সালে খবর বেরোয় যে, অ্যান্ড্রয়েড এর প্রধান অর্থাৎ এন্ডি রুবিন আর অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে কাজ করছেন না, তিনি গুগলের ভিন্ন এক প্রোজেক্ট নিয়ে কাজ করছেন। তার স্থানে দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়েছেন সুন্দর পিচাই যিনি পূর্বে গুগল ক্রোম এর বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন। 

সকল মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন অথবা নিবন্ধন করুন