আমেরিকার ভাঙ্গা রাষ্ট্রগুলি

ফটোগ্রাফার পিটার ভ্যান এগটমল তার ভ্রমণের অভিজ্ঞতা ও অনুসন্ধানের ইচ্ছা থেকেই এই দেশের অন্ধরকারচ্ছন্ন দৃশ্যগুলো সুন্দর করে উপস্থাপন করেন। ২০১১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর পিটার এগটমল এর বয়স ছিল ২০ বছর। অন্যান্য আমেরিকানদের মত এই বয়সে এসে, বিশ্ব দৃষ্টিভঙ্গি তাকে নাড়া দিয়েছিল। তিনি পরবর্তী দশ বছর জাতি, জাতীয়তা, ইতিহাস এবং শ্রেণী সম্পর্কিত কিছু প্রশ্ন নিয়ে চিন্তা ভাবনা করেই কাটিয়ে দিয়েছেন।

poat-image

একজন ফটোগ্রাফার হিসেবে তিনি ইরাক এবং আফগানিস্তানের যুদ্ধক্ষেত্রে আমেরিকান সেনাবাহিনীতে নিযুক্ত হন, তারপর যুদ্ধে আহত সেনাদের সাথে তিনি তার বাড়িতে ফিরে আসেন।কিন্তু ভ্যান এগটমল অনুধাবন করতে পেরেছিলেন, আমেরিকার ৯/১১ এর পর থেকে কতটুকু পরিবর্তন হয়েছে সে সম্পর্কে তিনি যদি ভালোভাবে জানতে চান, তাহলে তাকে সেনাবাহিনীর সঙ্কীর্ণচিত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।

poat-image

২০০৯ সালে এগটমল ৫০টি রাষ্ট্রে ঘুরার মাধ্যমে তার অনুসন্ধান শুরু করেন। তিনি এবং তার এক বন্ধু একসাথে যাত্রা শুরু করেন এবং অনেক দীর্ঘ পথ ভ্রমণ করেন, লোকজনের সাক্ষাত নেন, এবং তাদের গল্প শুনেন। ভ্যান এগটমিল এর দৃষ্টিভঙ্গি নিখুঁত ছিল, তিনি নিজেকে একটি নির্দিষ্ট পরিকল্পনার মধ্যে সীমাবদ্ধ করে রাখতে চান নি, তিনি সব সময় সুযোগের অপেক্ষায় থাকতেন, এবং মানুষের সাথে সাক্ষাতে সময় স্বতঃস্ফুর্ত থাকতেন। এবং এই প্রক্রিয়া অবলম্বন করার কারণে তিনি আশা করেন তিনি তার ছবিগুলোতে  মানুষের মনের জটিল আবেগ যা তিনি নিজে অনুধাবন করেছেন তা তুলে ধরতে পেরেছেন। যদিও তিনি যুদ্ধক্ষেত্র থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন, কিন্তু সমাজের সব বিষাদময় চিত্র তাকে বিচলিত করে তোলে।

poat-image

তিনি বলেন “দিনের পর দিন আমি যে বাস্তব অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছি, সেগুলো ছিলো সমাজের নানাবিধ সমস্যার প্রতিচ্ছবি, আমি দেখেছি আমেরিকার এক বিশাল জনগোষ্ঠী গোটা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন রয়েছে”। তিনি নিজ অভিজ্ঞতা থেকে জানতে পেরেছেন লোকজন যেভাবে রাজনীতি, খ্যাতিমান ব্যক্তি এবং মিডিয়া নিয়ে চিন্তা করে, তা আসলে বাস্তবতা থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন।

poat-image

তিনি কিছু কিছু ছবি তুলেছেন লোকজনের অনুমতি নিয়ে। অন্যান্য গুলো ছিল রাস্তায় দ্রুত হেঁটে যাওয়া মানুষের ছবি। তিনি তার ছবিগুলোর নামকরণ করেছেন “আমেরিকার কাছে প্রেম পত্র” নামে, যেখানে প্রতিটা ছবি ভিন্ন ভিন্ন দৃশ্য অবলম্বনে তোলা হয়েছে, যেখানে তিনি আমেরিকার ভাঙ্গা রাষ্ট্রগুলোর একটি প্রতিচ্ছবি তুলে ধরেছেন।

poat-image

এই ভ্রমণের অভিজ্ঞতা থেকে ভ্যান এগটমিল একটি নতুন বই লিখেন Buzzing at the Sill। বইটির সামগ্রিক সুর একটু নিরানন্দ মনে হতে পারে, কিন্তু বইটির মাধ্যমে তিনি আমেরিকার একটি অসম অংশের চিত্র তুলে ধরতে চেয়েছেন। ছবিগুলোতে তুলে ধরা হয়েছে নিত্যদিনের কাজকর্ম, আরাম আয়েশের চাল-চলন, হাস্যকর অথবা বিরক্তিকর মূহুর্ত। কিন্তু সবগুলোই ছবিই চিন্তাধারার ভার বহন করে, এবং এর মাধ্যমে তিনি পাঠকদের সাথে আমেরিকার এমন কিছু অংশের সাথে পরিচয় করিয়ে দেন যা সম্পর্কে তাদের কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা ছিল না।

poat-image

তিনি বলেন, “এই কাজটি একটি কারুকার্য বিশিষ্ট শিল্পের মত। যদিও এটি বিষাদময় মনে হতে পারে, তবে এটি হলো আমেরিকার প্রতি এটি তার শ্রদ্ধার অনুলিপি।”ভ্যান এগটমিলের আমেরিকা এখন কোথায় গিয়ে পৌঁছেছে সে প্রশ্নটির সঠিক কোন উত্তর পান নি, কিন্তু তিনি মনে করেন পাঠকরা তার ছবিগুলোতে প্রশ্নগুলোর উত্তর পেয়ে যাবেন।

poat-image

তার ভ্রমণ শেষ করে, তিনি এমন একটি মানসিক পরিস্থির সম্মুখীন হন যার ফলে তিনি ভ্রমণের পূর্বে যেমন ছিলেন তার চেয়ে বেশী সাধারণ জীবনযাপন করতে শুরু করেন। তার মতে, আমেরিকা একটি দেশ মাত্র, এখানে প্রত্যেকে স্ব-স্ব মতবাদ, দৃষ্টিভঙ্গি এবং পারিপার্শ্বিক অবস্থা দ্বারা চালিত। সংক্ষেপে আমরা শুধুমাত্র মানুষ, এছাড়া আর কিছু না।  

আপনি কি সাহায্য পেয়েছেন

সকল মন্তব্য

মন্তব্য করতে লগইন করুন নিবন্ধন করুন